একদিনে দুইবার কমলো টাকার মান

প্রকাশিত: ১২:০১ পূর্বাহ্ণ, জুন ৭, ২০২২

একদিনে দুইবার কমলো টাকার মান

সুরমা মেইল ডেস্ক :
যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের বিপরীতে টাকার মান এক দিনে কমল দুই দফায়। এর মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক আনুষ্ঠানিকভাবে ১ টাকা ৬০ পয়সা কমায়। এরপর আরও ৪৫ পয়সা অবমূল্যায়ন হয়। তবে সেটি বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে এখনও আপডেট হয়নি।

 

করোনা পরিস্থিতির উন্নতির পর বিশ্ব যখন স্বাভাবিক অবস্থায় যাচ্ছে, সে সময় ইউক্রেনে রুশ হামলার প্রতিক্রিয়ায় নানা ঘটনাপ্রবাহে দেশে দেশে মুদ্রা যখন মান হারাচ্ছে, তখন এই ঘটনাটি ঘটল সোমবার।

 

দুপুরে টাকার মান ১ টাকা ৬০ পয়সা কমিয়ে ডলারের দর ৯১ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করে বাংলাদেশ ব্যাংক। পরে বাজারে ডলারের ব্যাপক চাহিদা থাকায় আরও ৪৫ পয়সা কমিয়ে ৯১ টাকা ৯৫ পয়সা দরে ডলার বিক্রি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

 

অর্থাৎ সোমবার সবশেষ আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলার প্রায় ৯২ টাকায় বিক্রি হয়েছে। অর্থাৎ ১ ডলারের জন্য গুনতে হয়েছে ৯২ টাকা।

 

ব্যাংকগুলোতে ডলারের একক হার বেঁধে দেয়ার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার পর তিন দফায় ডলারের দাম বাড়ল। আর মে মাসে চার দফা কমেছিল টাকার মান।

 

একদিনে দুই দফা টাকার অবমূল্যায়ন হয়েছে কি না-এ প্রশ্নের উত্তরে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টা আসলে সে রকম নয়, আন্তব্যাংক লেনদেনের দর সমসময় নিয়মিতভাবে হালনাগাদ হয় না। সে কারণেই এমনটা মনে হচ্ছে।

 

‘রোববারই আসলে ডলারের দর ৯১ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছিল। সেটা আজ (সোমবার) ওয়েবসাইটে দেয়া হয়। সোমবার অর্থাৎ আজ ডলারের দর আরও ৪৫ পয়সা বাড়িয়ে ৯১ টাকা ৯৫ পয়সা করা হয়েছে। সেটা কাল (মঙ্গলবার) ওয়েবসাইটে দেয়া হবে।’

 

রোববার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েবসাইটে ডলার-টাকার বিনিময় হার দেয়া ছিল ৮৯ টাকা ৯০ পয়সা।

 

এর আগে ডলারের দর বেঁধে দেয়ার নিয়ম তুলে দেয়ার দিন বৃহস্পতিবার দুই দফায় আগের দিনের চেয়ে বেশি দরে ডলার বিক্রি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে ওই দিনও দুবার টাকার মান কমে যায়।

 

বৃহস্পতিবার প্রথম দফায় ব্যাংকগুলোর কাছে ৮৯ টাকা ৯০ পয়সা দরে বিক্রি করা হয় সাড়ে ১৩ কোটি ডলার।

 

মুখপাত্র সিরাজুল জানান, ওইদিন দ্বিতীয় দফায় জরুরি চাহিদা মেটাতে আরও ৫০ লাখ ডলার বিক্রি করা হয় ৯১ টাকা ৫০ পয়সায়।

 

এতে ডলারের দর বাজারের ওপর ছেড়ে দেয়ার দিনই টাকার মান কমে আড়াই টাকা। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে একদিনে টাকা এতটা দর হারায়নি। এর আগে দর কমেছিল একদিনে সর্বোচ্চ ১ টাকা ১০ পয়সা।

 

গত বুধবার সাম্প্রতিক সময়ে চাহিদা সংকটে অস্থির হয়ে ওঠা ডলারের বাজারে প্রধান এ বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় মূল্য নির্ধারণের অনুসরণ করে আসা ‘ম্যানেজড এক্সচেঞ্জ রেট’তুলে নেয়ার কথা ব্যাংকগুলোকে জানায় বাংলাদেশ ব্যাংক।

 

আমদানির ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় ডলারের চাহিদা বাড়ছে গত কয়েক মাস ধরে। রপ্তানি ও রেমিটেন্স থেকে আমদানি খরচ মেটানোর মত ডলার মিলছে না। এ কারণে ডলারের সরবরাহে টান পড়েছে, যা প্রধান এ বৈদেশিক মুদ্রার বাজারকে চড়া করে তোলে।

 

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, নতুন নিয়ম অনুযায়ী এখন থেকে ডলারের বিনিময় হার বাজারের চাহিদা অনুযায়ী নির্ধারিত হবে। তবে নিজেদের মধ্যে ডলার লেনদেনে ব্যাংকগুলোকে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডলার বিক্রির দরকে ‘অনুসরণ’ করতে বলা হয়েছে।

 

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘বাজারের চাহিদা ও সরবরাহে ভারসাম্য রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংক ডলার বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে। সোমবার ব্যাংকগুলোকে সাপোর্ট দিতে এক কোটি ডলার বিক্রি করেছে।’

 

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংক সোমবার সবশেষ আন্তব্যাংক লেনদেনে ব্যাংকগুলোর কাছে ৯১ টাকা ৯৫ পয়সায় ডলার বিক্রি করলেও ব্যাংকগুলো সাধারণ গ্রাহকদের কাছে ৩ থেকে ৪ টাকা বেশি দরে নগদ ডলার বিক্রি করেছে।


সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com