ক্যান্সার ঝুঁকিতে খাদিম চা বাগানের ১৩ নারী

প্রকাশিত: ১:০৯ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৯

ক্যান্সার ঝুঁকিতে খাদিম চা বাগানের ১৩ নারী

সুরমা মেইল ডেস্ক : জরায়ুমুখ ক্যান্সারের ঝুঁকিতে রয়েছেন সিলেটের খাদিমনগর চা বাগানের ১৩ নারী শ্রমিক। ক্যান্সার সনাক্তকরণ ‘ভায়া’ পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ এসেছে তাদের। যদিও চিকিৎসকরা বলছেন, ভায়া পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসলেই ক্যান্সার হয় না। তারপরও চা বাগানের নারীদের বাল্য বিবাহ, মাসিক ঋতুস্রাবের সময় অস্বাস্থ্যকর কাপড় ব্যবহারের কারণে তাদের জরায়ু ক্যান্সার হওয়ার শঙ্কা রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

 

বুধবার (২৫ ডিসেম্বর) সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সিলেটের খাদিমনগর চা বাগারে নারী শ্রমিকদের জন্য বিনামূল্যে মেডিকেল ক্যাম্পেইন এবং জরায়ুমুখের ক্যান্সার সনাক্তকরণ ‘ভায়া’ পরীক্ষা করে সামাজিক সংগঠন আলোকিত আগামী ও নারী স্বাস্থ্য সুরক্ষা ফোরাম। এই মেডিকেল ক্যাম্পেইনের সহযোগিতায় ছিল সিলেটের সামাজিক সংগঠন ঊষা, ইউনিমেড ইউনিহ্যাল্থ ও ডাক্তার ও মেডিকেল শিক্ষার্থীদের সংগঠন প্লাটফর্ম।

 

এই ক্যাম্পেইনে  চা বাগানের ২৫০ জনকে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। এর মধ্যে ১০০ জন নারী ও ৯৮ জন পুরুষ ও ৫২ জন শিশু চিকিৎসা নেয়। এরমধ্যে ৫৭ জন নারীর ক্যান্সার সনান্তকরণ ভায়া পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে ১৩জন নারীর। তাদেরকে ২ সপ্তাহ পর আলোকিত আগামীর পক্ষ থেকে ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে কলাপোস্টকপি টেস্ট করানো হবে। এর মাধ্যমে জানা যাবে কতজন নারী ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন।

 

মেডিকেল ক্যাম্পেইনে অংশ নেওয়া চিকিৎসকরা জানান, বাল্য বিবাহ, মাসিক ঋতুস্রাবের সময় অস্বাস্থ্যকর কাপড় ব্যবহার, অধিক বাচ্চা প্রসব করা ও একাধিক ব্যক্তির সাথে সহবাস করলে জরায়ু ক্যান্সার হয়। এই জন্য বিবাহিত নারীদের ভায়া পরীক্ষা করানো জরুরী। ভায়া পরীক্ষায় পজিটিভ মানেই ক্যান্সার না। জরায়ুতে ইনফেকশন থাকলেও ভায়া টেস্টে পজিটিভ আসে। কলাপোস্টকপি টেস্ট করানোর পর বলা যাবে আক্রান্ত রোগীর ক্যান্সার নাকি শুধু ইনফেকশন হয়েছে। এই টেস্টের রিপোর্টের মাধ্যমে রোগীর পরিস্থিতি বুঝে চিকিৎসা দেওয়া হবে।

 

খাদিম চা বাগানের চা শ্রমিক মনোয়ারা (৫০)। ভায়া পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে তার। তার সাথে কথা বলে জানা যায়, ১২ বছর বয়সে বিয়ে হয় মনোয়ারার। অল্প বয়সে একাধিক বাচ্চা জন্ম দিয়েছেন। মাসিক ঋতুস্রাবের সময়ও কাপড় ব্যবহার করতেন মনোয়ারা। তিনি বলেন, বাবা মা কম বয়সে বিয়ে দিয়েছেন। বিয়ের পর পরই মা হয়েছি। এই রোগ কথা আগে জানতাম না। আমরা গরীব মানুষ। ক্যান্সার হইলে চিকিৎসা করানোরও টাকা নাই।

 

মনোয়ারার মতই আলো (৫০), নলিতা (৪৮), অনিতা (৪৫) হনুফার (৩৫)ও ভায়া পরীক্ষায় পজিটিভ আসছে। তাদেরও কম বয়সে বিয়ে হয়েছে। তারা সবাইও মাসিকের সময় কাপড় ব্যবহার করেন।

 

অনিতা নায়েক বলেন, যখন থেকে শরীর খারাপ (মাসিক ঋতুস্রাব) হয়েছে তখন থেকেই কাপড় ব্যবহার করি। কাপড় ছাড়া যে আরও কিছু ব্যবহার করা যায় আমরা জানি না। তাই যতটকু পারি কাপড় ধুয়ে ব্যবহার করার চেষ্টা করছি।

 

মেডিকেল ক্যাম্পে ভায়া পরীক্ষার পাশাপাশি নারীদের অন্যান্য রোগেরও চিকিৎসা, ব্যবস্থাপত্র ও ওষুধ দেওয়া হয়েছে। ভায়া পরীক্ষা করেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স জ্যোৎস্না বেগম। তার সহকারী ছিলেন ক্যামেলিয়া ডানকান ফাউন্ডেশন হাসপাতালের মেডিকেল এসিস্ট্যান্ট সানজানা শিরীন ও ডিপ্লোমা নার্স তাহমিনা আক্তার। রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেন ওসমানী মেডিকেলের ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. সাদিয়া মার্জানসহ একদল ইন্টার্ন চিকিৎসক।

 

ডা. সাদিয়া মার্জান বলেন, অল্প বয়সে বিয়ে, মাসিক ঋতুস্রাবের সময় অস্বাস্থ্যকর কাপড় ব্যবহার, অধিক বাচ্চা প্রসব করা ও একাধিক ব্যক্তির সাথে সহবাস করলে জরায়ু ক্যান্সার হয়। চা বাগানের নারীদের বেশিভাগই অল্প বয়সে বিয়ে হয়। মাসিকের সময় তারা অস্বাস্থ্যকর কাপড় ব্যবহার করেন। একাধিক বাচ্চাও জন্ম দেন তারা। তাই তাদের জরায়ু ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বেশি।

 

ঊষার প্রধান উদ্যোক্তা নিগার সাদিয়া বলেন, দীর্ঘদিন যাবত চা শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করছি। তাদের জীবনযাপন দেখছি। সেজন্যই বলতে পারি চা সাধারণ নারীদের চেয়ে চা শ্রমিক নারীদের জরায়ু ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা বেশি। তারা জরায়ুর রোগ সম্পর্কে জ্ঞাত নন। অনেকে আবার এই সংক্রান্ত কিছু শুনলেই ভয় পান। এই রোগ সম্পর্কে তাদের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে। এক্ষেত্রে সরকার, বেসরকারি সকল সংগঠনকে এগিয়ে আসতে হবে।

 

আয়োজক সংগঠন আলোকিত আগামীর প্রতিষ্ঠাতা মারজিয়া প্রভা বলেন, যে নারীদের ভায়া টেস্টে পজিটিভ ফলাফল আসছে তাদেরকে ২ সপ্তাহ পর কলাপোস্টকপি টেস্ট করাবো আমরা। সেই পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পর যার যেমন প্রয়োজন তেমন চিকিৎসা দেওয়ার ব্যবস্থা করবো। এই জন্য বাগান কর্তৃপক্ষ, স্থানীয় সরকারে প্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com