প্রচ্ছদ

জৈন্তাপুরে পতিতা-খদ্দেরসহ যুবলীগ নেত্রী মিনারা আটক

২৬ আগস্ট ২০১৯, ০৪:০৪

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি
জনতার হাতে আটক যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিনারা চৌধুরীসহ খদ্দের

সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার একটি ফ্ল্যাট বাসায় অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকাবস্থায় হাতেনাতে জেলা যুব মহিলা লীগের নেত্রীসহ ২ পতিতা ও ১৬ খদ্দেরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা।

রোববার (২৬ আগস্ট) রাত ১১টায় উপজেলার চিকনাগুল ইউনিয়নের ঘাটেরছটিস্থ উপহার সেন্টার সংলগ্ন জেলা যুব মহিলা লীগের অর্থ সম্পাদিকা মিনারা চৌধুরীর ভাড়া ফ্ল্যাটে এঘটনা ঘটে। সদর উপজেলার খাদিমপাড়া ইউনিয়ন যুবলীগ কর্মী হোসেন আহমদের (জিতু) নাম জানা গেলেও আটককৃত বাকিদের নাম জানাতে পারেনি পুলিশ।

আটককৃত সবাই সিলেট জেলা যুবলীগের কর্মী বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার সন্ধ্যায় ৮টার দিকে জৈন্তাপুর উপজেলার চিকনাগুল উপহার সেন্টার সংলগ্ন একটি ফ্ল্যাট বাসায় প্রতিদিন বিভিন্ন বয়সী ব্যক্তিদের যাতায়াত জেলা যুব মহিলা লীগ নেত্রীর বাসায়। বিষয়টি এলাকার মরব্বি ও যুবকদের নজরে আসলে রোববার সন্ধ্যা থেকেই তারা পাহাড়া দেন। প্রতিদিনের ন্যায় রোববারও সন্ধ্যা ৭টা থেকে শুরু হয় ওই বাসায় উঠতি বয়সি তরুণ ও যুবকদের আনাগোনা। পরে বাড়ি ঘেরাও করে তারা খবর দেন ইউপি সদস্য আহমদ হোসেন চৌধুরীসহ এলাকার মুরব্বিদের।

জেলা যুব মহিলা লীগের অর্থ সম্পাদক মিনারা চৌধুরী।

খবর পেয়ে এলাকার লোকজন ঘটনাস্থলে (বাসা) গিয়ে সত্যতা পান। পরে ওই রুমের ভিতরে থাকা মহিলা যুব লীগের নেত্রী মিনারাসহ সবাইকে বাহিরে বেড়িয়ে আসার অনুরোধ করেন ইউপি সদস্য আহমদ হোসেন। তখন তারা বেড়িয়ে না এসে ভিতর থেকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে এবং ভিতর থেকে বিভিন্ন ধরণের হুমকি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে জুড় করে রুমের দরজা খুলে অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকাবস্থায় তাদের হাতেনাতে আটক করেন তারা। ঘটনার খবর চারি দিকে ছড়িয়ে পড়লে মুহুর্তে কয়েকশ’ লোজকন জমাট বাঁধে ঘটনাস্থলে।

উপস্থিত স্থানীয় ভিক্ষুব্ধ জনতা।

পরে স্থানীয় যুবকরা তাদের গ্রেফতার ও মিনারা চৌধুরীর শাস্তির দাবি জানিয়ে সিলেট-তামাবিল মহাসড়ক প্রায় দুই ঘন্টা অবরোধ করে রাখেন। ভিক্ষুব্ধ জনতা বাসায় আসা কয়েক জন খদ্দেরের মোটর সাইকেল ভাংচুর করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ভাড়াটিয়া জানান, প্রতিদিন ওই নেত্রীর বাসায় সন্ধ্যা হলেই বখাটে ছেলেদের বাজে আড্ডা ঝমে নেত্রী মিনারার ভাড়া বাসা। তারা সবাই মিলে ওই বাসায় দীর্ঘ সময় কাটান এবং তারা একে অন্যকে উচ্চস্বরে গালিগালাজ করেন। আমরা বিভ্রান্ত হলেও ভয়ে কিছু বলতে সাহস পাইনা। শুধু তাই নয় কয়েকদিন পরপর তার (মিনারা চৌধুরী) বাসায় নতুন নতুন মেয়ে নিয়ে আসেন। আর মাদক তো রয়েছেই।

সূত্র আরো জানায়, মিনারা চৌধুরী এখানে আসার পর থেকেই বাহিরের বাজে ছেলেদের আড্ডা বেড়েই চলেছে। মিনারা জৈন্তাপুর উপজেলাসহ সিলেট জেলার বেশ কয়েকটি স্থানে ইয়াবা ট্যাবলেটও সাপ্লাই দেন।

ঘটনার খরব পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন জৈন্তাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল আহমদ, ওসি শ্যামল বনিক, ভাইস চেয়ারম্যান বশির উদ্দিন, চিকনাগুল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আমিনুর রশিদ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা: আবুল হাসনাত, ফখরুল ইসলাম। পরে হস্তক্ষেপে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।

ভিক্ষুব্ধ জনতার সড়ক অবরোধ।

আটক ও ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বনিক। তিনি এমন কর্মকা-ে সহযোগিতার জন্য কতৃজ্ঞতাসহ ধন্যবাদ জানিয়েছেন চিকনাগুল ইউনিয়নবাসীকে৷

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com