পার্বত্য অঞ্চলের জীবনমান উন্নয়নে রেড-ক্রিসেন্টের ১শ’ কোটির টাকার প্রকল্প গ্রহণ

প্রকাশিত: ১২:১৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

পার্বত্য অঞ্চলের জীবনমান উন্নয়নে রেড-ক্রিসেন্টের ১শ’ কোটির টাকার প্রকল্প গ্রহণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, কানাইঘাট : বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ডের ২৬২তম সভা গত ৬ অক্টোবর বিকেল ৩টায় পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।

 

রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান সিলেট-৫ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাফিজ আহমদ মজুমদারের সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি ট্রেজারার এ্যাডভোকেট তৌহিদুর রহমান, ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য লুৎফুর রহমান চৌধুরী হেলাল, ডাঃ শেখ শফিউল আজম, রাজিয়া সুলতানা লুনা, এ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন, রবীন্দ্র মোহন সাহা (রবি), আলহাজ্ব গাজী মোজাম্মেল হোসেন টুকু।

 

৪ দিনব্যাপী সফরে সোসাইটির ম্যানেজিং কমিটির নেতৃবৃন্দ খাগড়াছড়ী জেলার ইকো-সেক প্রকল্পের কমিউনিটি, স্থানীয় কমিউনিটি পরিদর্শন, খাগড়াছড়ি ইউনিটের নির্বাহী কমিটি এবং স্থানীয় প্রশাসনের সাথে মতবিনিময় করেন।

 

রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান সাংসদ হাফিজ আহমদ মজুমদার জানিয়েছেন, ‘দেশের পার্বত্য অঞ্চলে ইন্টারন্যাশনাল রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যোগে মানুষের জীবন মানের উন্নয়ন, দারিদ্র বিমোচনসহ বিভিন্ন খাতে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির তত্বাবধানে ১শ’ কোটি টাকার প্রজেক্ট হাতে নেওয়া হয়েছে। সোসাইটির ২৬২তম সভায় পার্বত্য অঞ্চলের এসব উন্নয়ন ও সেবা মূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ব্যাপক আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।’

 

তিনি বলেন, ‘পাবর্ত্য চট্টগ্রামের ইকো-সেক প্রকল্প ও ওয়াশ প্রকল্পের কাজ চলছে। তার মধ্যে ইকো-সেক প্রকল্পের আওতায় পার্বত্য জেলা সমুহে বসবাসরত বাঙ্গালী, মারমা, চাকমা, খেয়াং, মুরং, বম, তংচঙ্গা ইত্যাদি হতদরিদ্র জনগণের জীবনমান উন্নয়নে আইসিআরসির সহযোগিতায় ২০১৪ সাল থেকে ইকো-সেক প্রকল্পের বাস্তবায়ন শুরু হয়। এ প্রকল্পের আওতায় পিছিয়ে পড়া জনগোষ্টির প্রতিটি পরিবারকে ৩০ হাজার টাকা অনুদান প্রদান করা হয় এবং চলতি বছর পর্যন্ত খাগড়াছড়ি জেলার ৬টি উপজেলায় ৩২টি কমিউনিটিতে সর্বমোট ১৪২৮ পরিবারকে প্রায় ৪ কোটি ২৮ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা অনুদান দেওয়া হয়।’

 

এতে ৭ হাজার ১৪২ জন নারী-পুরুষ উপকৃত হন। ওয়াশ প্রকল্পের আওতায় খাগড়াছড়ি জেলার ১২টি কমিউনিটিতে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টি ও বাঙ্গালী জনগোষ্টির জন্য উন্নত স্বাস্থ্য সম্মত পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, নিরাপদ পানি ও স্বাস্থ্য বিধি উন্নত করণ কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে।

 

এছাড়াও প্রাথমিক চিকিৎসা কিটবক্স, ১ হাজার ১৬ হাইজিন আইটেম বিতরন করা হয়েছে। ১৫টি কমিউনিটির ১ হাজার ৫৮টি অতি দরিদ্র পরিবারের জন্য বিনা মূল্যে উন্নত স্যানিটেশন ব্যবস্থা এবং ১০৯টি নিরাপদ পানির উৎস নতুন স্থাপন ও পুনঃসংস্কার, ২টি কমিউনিটিতে ঝর্ণা থেকে পাইপ নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

এসব কার্যক্রম বাস্তবায়নে পার্বত্য অঞ্চলের যুব রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির সদস্যরা কাজ করবেন বলে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান সাংসদ মজুমদার জানিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com