মামলা তুলে না নেয়ায় মাধবপুরে ‘ধর্ষিতা’ ২ বোনকে কুপিয়ে জখম

প্রকাশিত: ২:২৭ পূর্বাহ্ণ, মে ৩, ২০১৮

মামলা তুলে না নেয়ায় মাধবপুরে ‘ধর্ষিতা’ ২ বোনকে কুপিয়ে জখম

হবিগঞ্জের মাধবপুরে ধর্ষণ মামলা তুলে না নেয়ায় তিন বছর পর ভুক্তভোগী দুই বোনের বাড়িতে হামলা করে তাদেরকে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভুক্তভোগীরা এ জন্য আসামিদেরকে দায়ী করছেন।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে ঘটনা ঘটে। দুই বোনের বাড়িঘরও ভাঙচুরের পাশাপাশি লুটপাট করা হয়েছে।

আহতরা জানান, ২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি রাত অনুমান ১২টার দিকে পাশের বাড়ির সাদ্দাম মিয়া ও তার সহযোগী ইয়াকুব আলী তাদের ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে। এ সময় দুই বোনকে হাত বেঁধে ধর্ষণ করা হয়।

টের পেয়ে বাড়ির লোকজন ছুটে আসার আগেই পালিয়ে যান দুই জন। পরে তাদের উদ্ধার করে মাধবপুর থানায় জানানো হলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

পওে সে সময় পুলিশের সহযোগিতায় ধর্ষিতা একজনকে গভীর রাতে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। আর সাদ্দাম ও ইয়াকুবসহ আরও দুই জনকে আসামি করে মামলা করা হয়।

আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলে আসামিরা আত্মগোপনে যান। সম্প্রতি পুলিশ তাদের ধরতে অভিযান চালালে আসামিরা মামলা তুলে নিতে চাপ দিতে থাকে।

কিন্তু মামরা তুলে নিতে রাজি হননি বাদী। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইয়াকুব আলী একদল লোক নিয়ে মেয়েটির বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় তাদের বাধাঁ দিলে তাদেরকে কুপিয়ে ক্ষতিবিক্ষত করা হয়।

এ ব্যাপারে মাধবপুর-চুনারুঘাট সার্কেলে জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার এস এম রাজু আহমেদ ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘হামলার ঘটনাটি শোনেছি। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

‘তাছাড়া গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত আসামিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে। দুই বোনের নিরাপত্তাতেও নেয়া হয়েছে ব্যবস্থা।’

তিন বছরেও আসামিরদেরকে গ্রেপ্তার করতে না পারার পেছনে পুলিশের কোনো অবহেলা ছিল কি না, এ বিষয়ে বাহিনীটির কর্মকর্তাদের কেউ বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  

Flag Counter

আমাদের ভিজিটর সংখ্যা

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com