রাজনীতিতে নেমেই নসিমন চালক কোটিপতি!

প্রকাশিত: ১:৫৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০২০

রাজনীতিতে নেমেই নসিমন চালক কোটিপতি!

সুরমা মেইল ডেস্ক ,

 

ছিলেন নসিমন চালক। কিন্তু ২০০৮ সালে বিএনপি থেকে আ’লীগে যোগ দিয়ে অল্প দিনেই হয়েছেন কোটিপতি। এলাকায় সৃষ্টি করেছেন ত্রাসের রাজত্ব।

 

পুকুর-জমি দখলসহ নানা অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ যুবদল থেকে আসা চৌগ্রাম ইউনিয়ন আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবির বিরুদ্ধে। সম্প্রতি জমি নিয়ে বিরোধের জেরে রবি ও তার সহযোগীরা ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে আ’লীগ নেতার স্ত্রীকে।

 

এ ঘটনায় রবিকে প্রধান আসামি করে ১৫ জনের নামে একটি হত্যা মামলা হয়েছে। সোমবার রাতে নিহতের মেয়ে ইতি খাতুন বাদী হয়ে সিংড়া থানায় এ মামলা করেন।

 

এদিকে ৬ সেপ্টেম্বর প্রকাশ্য দিবালোকে আ’লীগ কর্মী শিল্পী বেগমকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে পালিয়ে যায় আ’লীগ নেতা রবিউল ইসলাম রবি। আর এ হত্যাকাণ্ডের ৪ দিন পেরিয়ে গেলেও প্রধান আসামি রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে কোনো সাংগঠনিক ব্যবস্থা না নেয়ায় স্থানীয় আ’লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে সমালোচনার ঝড় বইছে।

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত আ’লীগ নেতা রবির মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। তার মেজ ভাই সাইফুল ইসলাম শাবুর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার ভাই ২০ বছর আগে নসিমন চালাতেন। আর দুটি ট্রাক ও জমিজমাসহ যেসব সম্পদ আছে তা ধারদেনা করেই করেছেন।

 

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, এক সময় রবি চৌগ্রাম ইউনিয়ন যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন এবং এলাকায় নসিমন (ভটভটি) চালিয়ে জীবনযাপন করতেন। কিন্তু ২০০৮ সালে হঠাৎ বিএনপি থেকে আ’লীগে যোগদান করে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেন।

 

রাতারাতি বাড়ি-গাড়ির মালিক বনে যান। সুদের কারবার, পুকুর দখল ও চাঁদাবাজির কারণে এলাকার সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেন। তার ভয়ে এলাকার নির্যাতিতরা মুখ খুলতে সাহস পান না।

 

এর আগে রবির বিরুদ্ধে চৌগ্রাম ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আজাহার আলী হত্যাসহ বিভিন্ন মামলা হলেও বারবার অদৃশ্য শক্তির কারণে পার পেয়ে যান তিনি।

 

চৌগ্রাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাঈদ আবুল বাসার শিপলু বলেন, বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে রবিউল ইসলাম রবি তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ক্ষুর দিয়ে রক্তাক্ত জখম করেন।

 

প্রাণে বেঁচে গেলেও তার শরীরে নিরানব্বইটি সেলাই দিতে হয়। তাকে দীর্ঘদিন সেই যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়েছে। বিএনপি ক্ষমতায় থাকার কারণে সে মামলা থেকে রেহাই পায়। পরে বিএনপি থেকে আ’লীগে যোগ দিয়ে আবার এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছে।

 

আর এসব হাইব্রিড ও সুবিধাভোগীদের কারণে আজ আ’লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীরা প্রতিনিয়তই নির্যাতিত হচ্ছেন। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবদুল ওয়দুদ দুদু বলেন, তার একটি পুকুর প্রায় ৮ বছর ধরে জবর দখল করে রেখেছে রবি। এক সময় নসিমন (ভটভটি) চালক এখন পালসার মোটরসাইকেল নিয়ে ঘোরাফেরা করেন। বর্তমানে দুটি ট্রাকসহ অনেক সম্পত্তির মালিক।

 

চৌগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আলতাব হোসেন জিন্নাহ বলেন, দলীয়ভাবে রবিউল ইসলাম রবির বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে তার বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কোনো সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি।

 

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিংড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কিশোর কুমার বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত সাদ্দাম হোসেন নামের এক আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের আটকের চেষ্টা চলছে।

 

এ বিষয়ে সহকারী পুলিশ সুপার সিংড়া সার্কেল মো. জামিল আকতার বলেন, আসামি রবিউল ইসলাম রবির বিরুদ্ধে সিংড়া থানায় হত্যা, মারধরসহ ৪টি মামলা রয়েছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে জমি দখল, খাস পুকুর দখলের অভিযোগ রয়েছে। আর এগুলো করেই সে সম্পদের মালিক হয়েছেন বলে জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Flag Counter

আমাদের ভিজিটর সংখ্যা

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com