শ্রীমঙ্গলে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ: মৃত্যুর ৩ বছর পর লাশ উত্তোলণ

প্রকাশিত: ১২:৩৩ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২১

শ্রীমঙ্গলে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ: মৃত্যুর ৩ বছর পর লাশ উত্তোলণ

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ৩ বছর পর মাস্টার গোলাম মোস্তফা রাজা মিয়ার মৃতদেহ কবর থেকে উত্তোলণ করা হয়েছে।

 

মঙ্গলবার (০৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আদালতের নির্দেশে ময়না তদন্তের জন্য উপজেলার মতিগঞ্জ এলাকার হাইল হাওরে অবস্থিত ‘রাজা ফিশারিজ এন্ড হ্যাচারি কমপ্লেক্স’র পারিবারিক কবরস্থান থেকে প্রতিষ্ঠানের সাবেক স্বত্বাধিকারী মৃত মাস্টার গোলাম মোস্তফা রাজা মিয়ার মৃতদেহ কবর থেকে উত্তোলণ করা হয়।

 

পরে মৃতদেহ মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সানজিদা খানম লাশ উত্তোলণ কার্যক্রম তদারকি করেন।

 

আরও পড়ন : বড়লেখায় ভাইয়ের দায়ের কোপে বড় ভাই নিহত

 

এসময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আলমগীর ও শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 

এসআই আলমগীর জানান, রাজা মিয়ার ছেলে গোলাম মুরসালিন রাজার একটি আবেদনের প্রেক্ষিতে মৌলভীবাজার জেলার বিজ্ঞ আদালত মৃতদেহ উত্তোলন করে পোস্টমর্টেম করার নির্দেশ দেন।

 

আবেদনে বলা হয়, রাজা মিয়ার বিপুল সম্পত্তির লোভে দ্বিতীয় স্ত্রী নূরজাহান রানী রাজা মিয়াকে বালিশ চাপা বা বিষ প্রয়োগ কিংবা অন্য কোনো উপায়ে হত্যা করে থাকতে পারে। এতে মৃতদেহ উত্তোলণ করে ময়না তদন্ত করার প্রার্থনা করা হয়।

 

পারিবারিক সূত্র জানায়, গত ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাজা মিয়া মৃত্যুবরণ করেন। এসময় তিনি দ্বিতীয় স্ত্রী নিয়ে বসবাস করতেন। রাজা মিয়ার মৃত্যুর পর থেকে দুই স্ত্রীর মধ্যে সম্পত্তি নিয়ে চরম বিরোধ দেখা দেয়।

 

এর এক পর্যায়ে ২০২০ সালের ২৬ আগস্ট বাবার এই মৃত্যুকে স্বাভাবিক মেনে না নিয়ে প্রথম পক্ষের ছেলে গোলাম মুরসালিন রাজা তার সৎ মা নূরজাহান বেগমকে প্রধান আসামি ও তার ভাই দেওয়ান আলামিন রাজা, দেওয়ান সেলিম, দেওয়ান জান্নাতুল ফেরদৌস লিখন ও নাছির মিয়াসহ অজ্ঞাতনামা আরও বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে আদালতে এই হত্যা মামলা দায়ের করেন।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Flag Counter

আমাদের ভিজিটর সংখ্যা

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com