প্রচ্ছদ

সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় পালিত হচ্ছে ঈদুল আযহা

১১ আগস্ট ২০১৯, ১৬:১৬

সুরমা মেইল ডেস্ক
ছবি সংগৃহীত

সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজারে ও শেরপুরের ছয়টি গ্রাম, সুনামগঞ্জের ধরমপাশা উপজেলায়, জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার ১৩টি গ্রামে, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আটটি গ্রামে, পটুয়াখালীর ২২টি গ্রামে আজ পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হচ্ছে।

রোববার (১১ আগস্ট) ধরমপাশা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ধরমপাশা উত্তরপাড়া গ্রামে আজ সকাল নয়টার দিকে ঈদুল আজহার প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

শরীয়তপুর জেলার সোরেশ্বর দরবার শরিফের ধরমপাশা উপজেলার ভক্তরা ধরমপাশা উত্তরপাড়া গ্রামে স্থানীয় খানকায় সমবেত হয়ে নামাজ আদায় করেন।

উপজেলার সৈয়দপুর, আহম্মদপুর, মোদাহরপুর, দশধরী, রাজনগর, দাসপাড়া, রাধানগর, কান্দাপাড়া, ধরমপাশা উত্তরপাড়া গ্রামসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের অর্ধশতাধিক ভক্তরা নামাজে অংশ নেন। ঈদের নামাজ পড়ান স্থানীয় খানকার খতিব বাবুল মিয়া। সাত বছর ধরে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে তাঁরা নামাজ আদায় করে আসছেন।

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার দক্ষিণ বলারদিয়ার আজিম উদ্দিন মাস্টারের বাড়ি জামে মসজিদ মাঠের ইমাম মাওলানা আজিম উদ্দিন বলেন, আমার পেছনে ১৩টি গ্রামের পাঁচ শতাধিক মুসল্লি ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেছেন।

দক্ষিণ বলারদিয়ার আজিম উদ্দিন মাস্টারের বাড়ি জামে মসজিদ সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার দক্ষিণ বলারদিয়ার আজিম উদ্দিন মাস্টারের বাড়ি জামে মসজিদ মাঠে প্রতিবছরের মতো এ বছরও মুলবাড়ি, বলারদিয়ার, সাতপোয়া, সাঞ্চারপাড়, পঞ্চপীর, পাখাডুবি, বালিয়া, বনগ্রাম, হোসনাবাদ ও বাউসী, পুঠিয়ারপাড়, বগারপাড়, পাটাবুগা ১৩টি গ্রামের পাঁচ শতাধিক মানুষ ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন।

অন্যদিকে মহাদান ইউনিয়নের বনগ্রাম ও উচ্চ গ্রামে ঈদুল আজহার আরও দুটি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বলারদিয়ার গ্রামের শাহা আলী (৬১) বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে আমরা ১৫ বছর ধরে ঈদুল আজহার নামাজ পড়ে আসছি।’

মৌলভীবাজারে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদুল আজহার নামাজ পড়েছেন শতাধিক পরিবারের মুসল্লি। রোববার সকাল সাড়ে সাতটায় মৌলভীবাজার শহরের সার্কিট হাউস এলাকার আহমেদ শাবিস্তা নামক বাসার ছাদে এই ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। নামাজে ইমামতি করেন আব্দুল মাওফিক চৌধুরী।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কুশখালী ইউনিয়নের বাউখোলা দক্ষিণপাড়ায় ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার সকাল সাড়ে সাতটায় অনুষ্ঠিত এ নামাজে মাওলানা মহব্বত আলী ইমামতি করেন।

জামায়াতে বাউখোলা, সাতানি, ভাদড়া, নলতা, খুলনার ডুমুরিয়া, পাইকগাছাসহ পাঁচ গ্রামের শতাধিক মানুষ নামাজ আদায় করেন। মাওলানা মহব্বত আলী জানান, তারা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে যুগ যুগ ধরে ঈদের নামাজ আদায় করে আসছেন।

কুশখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, নামাজ শেষে স্থানীয় কয়েকটি পরিবার কোরবানিও দিয়েছেন।

পটুয়াখালীর ২২টি গ্রামের পাঁচ হাজারেরও বেশি পরিবার আজ রোববার ঈদুল আজহা উদযাপন করছে। প্রতিবছরের মতো এবারও সৌদি আরবের সঙ্গে সংহতি রেখে এ পরিবারগুলো ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন করছেন।

পটুয়াখালীর সদর উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের বদরপুর দরবার শরিফ জামে মসজিদে সকাল নয়টায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। বদরপুর দরবার শরিফে প্রধান ঈদের জামাতের ইমামতি করেছেন দরবার শরিফের ইমাম মাওলানা শফিকুল ইসলাম গনি।

নামাজ শেষে দেশ ও জাতি এবং বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়। পরে পশু কোরবানি হতে দেখা গেছে। ১৯২৮ সাল থেকে প্রতিবছর তারা আগাম রোজা, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদযাপন করে আসছেন।

সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আজ রোববার শেরপুরের ছয়টি গ্রামে ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে। এসব গ্রাম হলো শেরপুর সদর উপজেলার চরখারচর পূর্বপাড়া ও পশ্চিমপাড়া, নকলা উপজেলার চরকৈয়া ও নারায়ণখোলা, ঝিনাইগাতী উপজেলার চতল এবং নালিতাবাড়ী উপজেলার নন্নী মধ্যপাড়া। এ ছয়টি গ্রামের প্রায় দুই হাজার মানুষ আজ সকাল আটটা থেকে বেলা ১১টার মধ্যে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

শেরপুর সদর উপজেলার বেতমারী-ঘুঘুরাকান্দি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম রফিকুল ইসলাম জানান, চরখারচর পূর্ব ও পশ্চিমপাড়া ঈদগাহ মাঠে প্রায় এক হাজার মানুষ ঈদের নামাজ আদায় করেন।

এসব গ্রামের মানুষ ৪৪ বছর ধরে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উদযাপন করে আসছেন। তারা ফরিদপুরের সুরেশ্বর পিরের অনুসারী বলে তিনি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com