সিলেট পর্বে রংপুরকে হারিয়ে শীর্ষে রাজশাহী

প্রকাশিত: ১:৪৭ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০২০

সিলেট পর্বে রংপুরকে হারিয়ে শীর্ষে রাজশাহী

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টুর্নামেন্টে রংপুর রেঞ্জার্স ও রাজশাহী প্রথম মুখোমুখি হয় ঢাকায় দ্বিতীয় পর্বের শেষ ম্যাচে নিজেদের ৮ম ম্যাচে। সিলেট পর্বের শুরুটাও তাদের ম্যাচ দিয়ে।

 

ঢাকায় রংপুর রেঞ্জার্স জিতে প্লে-অফ স্বপ্ন বড় করলেও সিলেটে এসেই ৩০ রানে হেরে বরং রাজশাহীকেই প্লে-অফ অনেকটা নিশ্চিত করে দিল। রবি বোপারার ব্যাটিং নৈপুন্যের পর রাব্বি, মালিকদের বোলিং তোপে ১৮০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে রংপুর থামে ১৪৯ রানে। এই জয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে উঠে এলো দলটি।

 

আরও পড়ুন » শ্বাসরুদ্ধকর সুপার ওভারে হারলো সিলেট (ভিডিও)

 

১৮০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় রংপুরের শুরুটা হয় বেশ বাজে, আরেক দফায় ব্যর্থ হয়ে টানা চতুর্থ ম্যাচ দুই অঙ্ক ছোঁয়ার আগেই ফিরে যান শেন ওয়াটসন (২)। ১৮ বলে ২৭ রানের ইনিংসে ঝড়ে ইঙ্গিত ছিল নাইম শেখের ব্যাটে। ফিরেছেন শোয়েব মালিকের বলে রবি বোপারাকে ক্যাচ দিয়ে। মালিকের দ্বিতীয় শিকার হয়ে দ্রুত ফেরেন ক্যামেরুন দেলপোর্তও (১৪)। ৪৭ রানে তিন উইকেট হারানো রংপুর আশা জিইয়ে রাখে ফজলে রাব্বি ও টম অ্যাবেলের ৬৪ রানের জুটিতে। দুই বলের ব্যবধানে দুজনই ফিরে গেলে আবারও বিপর্যয় নামে রংপুর শিবিরে।

 

ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৪ রান আসে ফজলে রাব্বির ব্যাট থেকে, ২৯ রান করেন টম অ্যাবেল। শেষ ৫ ওভারে ৬৬ রান প্রয়োজন এমন সমীকরণ আর মেলাতে পারেনি রংপুরের ব্যাটসম্যানরা। ১৮ রান করা আল আমিন জুনিয়র কেবল হারের ব্যবধানটাই কমাতে পেরেছেন। শেষ পর্যন্ত রংপুরকে থামতে হয় ৭ উইকেটে ১৪৯ রানে। সর্বোচ্চ দুটি করে উইকেট নেন কামরুল ইসলাম, মোহাম্মদ নওয়াজ ও শোয়েব মালিক। একটি উইকেট শিকার করেন মোহাম্মদ ইরফান।

 

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে আরও একবার ভালো শুরু এনে দেন রাজশাহীর দুই ওপেনার লিটন দাস ও আফিফ হোসেন ধ্রুব। দুজনের ৪.৫ ওভার স্থায়ী জুটি থেকে আসে ৫১ রান। ১৫ বলে ১৯ রান করে লিটন মুস্তাফিজের শিকার হলে ভাঙে জুটি। এরপর বেশিক্ষণ টিকেনি আফিফও, মোহাম্মদ নবির শিকার হয়ে ফেরার আগে খেলেন ১৭ বলে ২ চার তিন ছক্কায় ৩২ রানের ইনিংস। দুই ওপেনারের বিদায়ের পর আন্দ্রে রাসেলের চোটে পড়ে বিশ্রামে থাকার দিনে অধিনায়কত্ব পাওয়া শোয়েব মালিক ৩১ রানের জুটি গড়ে ইরফান শুক্কুরকে নিয়ে।

 

২০ বলে ২০ রান করে আরাফাত সানির শিকার হন ইরফান, শোয়েব মালিকের ব্যাট থেকে আসে ৩১ বলে ৩৭ রান। মালিককে ফেরানোর মাধ্যমে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় শিকারের সাথে মুস্তাফিজ উঠে আসেন টুর্নামেন্টে মেহেদী হাসান রানার সাথে সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহকের তালিকায় শীর্ষে। দুজনের উইকেট সংখ্যা এখন সমান ১৪ টি।

 

রাজশাহীর হয়ে শেষের ঝড়টা তোলেন বোপারা। তার ২৯ বলে ৪ চার ৩ ছক্কায় অপরাজিত ৫০ রানে ভর করেই রাজশাহী পায় ৪ উইকেটে ১৭৯ রানের পুঁজি। মোহাম্মদ নওয়াজের ব্যাট থেকে আসে ১৫ রান। সর্বোচ্চ দুটি উইকেট নেন মুস্তাফিজ, একটি করে শিকার আরাফাত সানি ও মোহাম্মদ নবির।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

রাজশাহী রয়্যালস ১৭৯/৪ (২০), লিটন ১৯, আফিফ ৩২, মালিক ৩৭, শুক্কুর ২০, বোপারা ৫০*, নওয়াজ ১৫*; সানি ৪-০-৪৫-১, মুস্তাফিজ ৪-০-৪১-২, নবি ৪-০-২৬-১।

 

রংপুর রেঞ্জার্স ১৪৯/৭ (২০), নাইম ২৭, ওয়াটসন ২, দেলপোর্ত ১৪, অ্যাবেল ২৯, রাব্বি ৩৪, নবি ৫, আল আমিন জুনিয়র ১৮, জহুরুল ৪*, তাসকিন ৪*; নওয়াজ ৪-০-২১-২, ইরফান ৪-০-২৩-১, মালিক ৪-০-২৭-২, রাব্বি ৩-০-৩২-২।

 

ফলাফল : রাজশাহী রয়্যালস ৩০ রানে জয়ী।

 

ম্যাচসেরা : রবি বোপারা (রাজশাহী রয়্যালস)।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com