স্বাস্থ্যমন্ত্রী বললেন মৃত্যুর হার কম : সংসদে পদত্যাগ দাবি

প্রকাশিত: ২:১৪ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১, ২০২০

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বললেন মৃত্যুর হার কম : সংসদে পদত্যাগ দাবি

সুরমা মেইল ডেস্ক : গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় সর্বোচ্চে ৬৪ জনের রেকর্ড মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ পরিস্থিতিতে করোনা প্রসঙ্গে জাতীয় সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, করোনা মহামারি ব্যবস্থাপনায় মন্ত্রণালয়ের কোনো সমন্বয়হীনতা নেই। যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলেই দেশে এখনো মৃত্যুর হার কম।

 

মঙ্গলবার (৩০ জুন) সকালে জাতীয় সংসদে বাজেট অধিবেশনের সমাপনী সেশনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে একটি আধুনিক ট্রিটমেন্ট প্রোটকল করা হয়েছে। সে কারণে আমাদের দেশে এখন মৃত্যু হার ১ দশমিক ৩৬। তবে মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও ভুক্তভোগীরা বলছেন ভিন্ন কথা।

 

দেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় বিভাগীয় শহর বরিশালের শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজে করোনা চিকিৎসার অব্যবস্থাপনার কথা জানিয়েছেন সেখানকার আউটডোর ডক্টরস এসোসিয়েশনের সভাপতি ডাক্তার সৌরভ সুতার। তিনি বলেছেন, করোনা রোগীদের জন্য প্রয়োজনীয় আইইসিইউ সংকটের কারণে তাদের দু’জন সহযোদ্ধা চিকিৎসকের জীবন দিতে হয়েছে।

 

এ প্রসঙ্গে উত্তরের বিভাগীয় সদরদপ্তর রংপুরের ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন তাদের নমুনা পরীক্ষার আব্যবস্থাপনার কথা। এ কারণে  করোনার সক্রমণ ছড়িয়ে পরার আতঙ্কের কথাও জানালেন তারা।

 

এদিকে, মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে বাজেট অধিবেশনে অংশ নিয়ে করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়হীনতা ও দুর্নীতি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন কয়েকজন সংসদ সদস্য। তারা স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেককে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিতে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানান।

 

এসময় জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, করোনাভাইরাস নিয়ে জনসচেতনতা তৈরিতে ব্যর্থ হয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

 

সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় মীনা কার্টুনে পরিণত হয়েছে। টিয়া পাখি দিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চলছে।

 

চাপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য হারুন অর রশিদ বলেন, করোনা পরীক্ষার ফলাফল সময়মতো পাচ্ছে না সাধারণ মানুষ। নমুনা পরীক্ষার ফল পেতে ১০-১৫ দিন সময় লাগছে। এ অবস্থায় দ্রুত স্বাস্থ্যখাতের সংস্কার প্রয়োজন।

 

গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়েরই স্বাস্থ্য খারাপ, এতে কোনো সন্দেহ নাই। এখাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে স্বাস্থ্যখাতের দায়িত্বরত চিকিৎসক কিংবা স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের হাতেই দেয়া উচিত।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com