ভাষাসৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা হবিগঞ্জের ফজলুর রহমান আর নেই

প্রকাশিত: ২:১৯ পূর্বাহ্ণ, জুন ১১, ২০২১

ভাষাসৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা হবিগঞ্জের ফজলুর রহমান আর নেই

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : ৫২’র ভাষা আন্দোলনের অকুতোভয় সৈনিক, মুক্তিযুদ্ধকালীন ১১ নম্বর সেক্টরের কোম্পানি কমান্ডার ও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য মো. ফজলুর রহমান চৌধুরী মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি দীর্ঘদিন বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন।

 

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সকালে হবিগঞ্জ শহরের ইনাতাবাদ এলাকায় নিজ বাসভবনে ৯০ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়। তিনি স্ত্রী, আট ছেলে, এক মেয়ে, নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

 

বৃহস্পতিবার বাদ জোহর হবিগঞ্জ শহরের টাউন (চাঁন মিয়া) মসজিদে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান চৌধুরীর প্রথম জানাজা ও বাদ আছর দ্বিতীয় জানাজা শেষে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সৌলরী গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

 

জানাজার আগে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও জেলা যুবলীগের সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম, সহকারী পুলিশ সুপার মুরাদ আহমেদ, হবিগঞ্জ সদরের ইউএনও বর্ণালী পাল, বানিয়াচং উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী প্রমুখ।

 

বক্তারা বলেন, ফজলুর রহমান চৌধুরী ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন ও ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখ সারির যোদ্ধা হিসেবে অসামান্য অবদান রাখেন। যুদ্ধের শুরুতে তিনি ভারতে ঢাল ক্যাম্পের ট্রেনিং ইনচার্জের দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে ১১ নম্বর সেক্টরের কোম্পানি কমান্ডারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ফজলুর রহমান চৌধুরী অভ্যন্তরীণ সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিয়ে হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ, কিশোগঞ্জের অষ্টগ্রাম, নিকলী, ইটনা, নেত্রকোনার কলমকান্দা, সুনামগঞ্জের তাহিরপুর, ময়মনসিংহের ভালুকা ও ফুলপুর থানা হানাদারমুক্ত করেন। ১৯৭২ সালে আজমিরীগঞ্জ থানা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রতিষ্ঠা কমান্ডার নির্বাচিত হন তিনি।

 

বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান চৌধুরী আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ফুফাতো ভাই। এছাড়া তিনি হবিগঞ্জ প্রেস ক্লাবের বর্তমান সভাপতি চৌধুরী মোহাম্মদ ফরিয়াদের বাবা।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com